অতঃপর !

1011495_144109465798973_423888293_n

 

অতঃপর!!
আমি তার হাত ধরে বসে রইলাম। মৃন্ময়ের চোখে রাজ্যের বিস্ময়! আর বার এদিক ওদিক দেখছে! আমি তার চোখের জল স্পস্ট দেখতে পেলাম। আমাকে ফাঁকি দেওয়ার বৃথা চেস্টায় সে মগ্ন!
আমি অনড়। শেষের অধ্যায়ে গল্পের সমাপ্তি টানার আগ মুহুর্তেও হয়তো মৃন্ময় ভেবেছিল, তার দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবসান ঘটিয়ে, একবার “ভালবাসি” শব্দচয়নে তার প্রান কাঁপিয়ে দেবো। তার অসহায় দৃস্টি আমার ভিতর টা নাড়িয়ে দিচ্ছিল।
আমার চোখ ভিজে উঠলো। মুখ ফিরিয়ে নিলাম।
মৃন্ময় আমার হাতটি আলতো চেপে ধরলো। এবার আমি উঠে দাড়ালাম। নাহ! আর থাকা যায়না।
হনহনিয়ে দরজার দিকে হাটতে লাগলাম।
আমার দর্বোধ্য অবহেলীত ভালবাসা পরে রইল শুভ্র সাফেত বিছানায়! আমি ঝড়ের বেগে পালাচ্ছি। চোখের পানি আড়াল করার চেস্টা করছি। পৃথিবীর সবচেয়ে ভয়ংকর অসনীয় বস্তু হচ্ছে.. চোখের পানি। মানুষের একমাত্র দুর্বলতা! কিছু কিছু দুর্বলতা অন্যকে দেখাতে নেই, প্রিয় মানুষ টিকেও নয়।
অনেকটা দুর চলে এসেছি। পিছনে পরে রইলো মৃন্ময়। জীবন সায়ান্নে নির্জীব, নিথর এক মানব মৃন্ময়! হস্পিটালটির দিকে চেয়ে রইলাম অপলক। ছেড়ে যেতে ইচ্ছে হচ্ছেনা। প্রকাশ্য হোক আর গোপন, ভালবাসার মানুষ কে ছেড়ে যাওয়া যায়না!!!
ফিরেও যেতে পারছিনা! মৃন্ময় আর পথের দুরত্বের ব্যাবধানে, আমি ঠাঁই দাড়িয়ে আছি!

ডার্ক এভিল।