মৃন্ময় ১৩

খুব বেশী নয়, সামান্য কিছু ভালোবাসা হাতে
তোমায় ঋণী করে রাখছি।
দেখো নিষ্পলক তোমার প্রতীক্ষায়, দিন যায়, যায় রাত
এক পৃথিবী ভর্তি দামী মোহর, আর অন্যদিকে তুমি
এপারে অথৈ সাগর ভরা সুখ
ওপারে তোমার ভাঙ্গা বেড়ার ফাঁকে দুঃখবিলাস
দুঃখবিলাসী হয়েই তোমাকে চাইছি।
 
গভীর কোন শোকে যখন তুমি মুহ্যমান
কিংবা তলিয়ে যাচ্ছো তুমি কোন অজানা গহীনে
মায়াবতী ছায়া হয়ে তোমায় ঢাল হয়ে দাঁড়াচ্ছি।
বিষাদময় ক্লান্ত রাতে, যখন পৃথিবী ঘুমে বিভোর
তুমি একাকী নিশাচর প্রহরী নির্ঘুম চোখে টানো সমুদ্র বালিরেখা
এক স্বস্তির নিঃশ্বাস হয়ে;
তখনো তোমার চোখের পাতায় ছুঁয়ে যাচ্ছি আমি।
 
খুব বেশী নয় মৃন্ময়,
সামান্য কিছু ভালবাসায় তোমায় ঋণী করে রাখছি।
 
পরিশ্রান্ত ঘর্মাক্ত তুমি অবচেতন মনে গা এলিয়ে জুতো পায়ে
অসাড় দেহ যখন তোমার নেতিয়ে পড়েছে জমিনে,
আমি আছি মমতার হাত বুলিয়ে
তোমার সারা গায়ে।
দেখনা, মা এর কোলে যেমনটি অবুজ শিশু
কিংবা প্রকৃতির কোলে সবুজের মাঠ।
রাতের কোলে যেমন ক্লান্ত পৃথিবী জিরায়
বৃষ্টির ঢলে শান্ত হয় যেমন উত্তপ্ত মৃত্তিকা
আমি তোমার তেমনি একজন।
আলো আঁধারীর খেলায়, দুঃখ-হতাশার ভেলায়
বিষণ্ন বেলায় কিংবা শোকগাঁথার মেলায়;
সর্বত্র তোমায় ঋণী করে রাখছি।
 
খুব বেশী নয়, সামান্য কিছু ভালোবাসা হাতে;
তোমায় ঋণী করে রাখছি।
পটলের ঝোল, চিড়ের মোয়া, সাথে অল্প আলুর দম
না হয় আর একটু মমতায় মিশানো চোখের জল
পায়ের কাছে গুটিশুটি রাঙা হাত, পায়ে মল
খুব বেশী নয়,
সামান্য কিছু ভালোবাসা হাতে; তোমায় ঋণী করে রাখছি।