মৃন্ময় ১১

চলে যাওয়া মানেই যদি প্রস্থান হতো,
তবে না হয় যেতাম চলে!
মৃন্ময়,
তুমি আমার সার্বক্ষণিক গড়িয়ে পড়া পদ্মপাতার জল
গড়িয়ে পড়ো ঠিক বুকের মধ্যিখানে
অবহেলিত গদ্যের নষ্ট পৃষ্ঠার মতই
আমার এক জীবনের কষ্ট তুমি।
কষ্টগুলো কেন এত কষ্টকর হয়?
কেন সময় অসময়ে আছড়ে পড়ে বুকের মাঝে
যেন রক্তনালী ছিঁড়ে দিতে চায়!
নষ্ট মানুষের উগ্র আস্ফালনের মতই
অব্যক্ত যন্ত্রণাগুলো অগ্নুৎপাত ঘটায় শিরায় শিরায়
আহ!
বেঁচে থাকা এত ভয়ংকর হয়ে উঠে কেন?
মৃন্ময়,
তোমার বাস আমার পাতালপুরীর ছোট বন্ধ কামরায়
অলৌকিক কিছু মায়ায় ঘেরা
জ্যোৎস্নার আলো পডে়না সেখানে
আমার আলোয় তোমার পথ আলোকিত করে যাই শুধু।
কি যে ভীষণ কষ্টে রাত দুপুরে আঁতকে উঠি
সে শুধু আমার স্রষ্টাই জানেন।
আমার এক জীবনের বাসনা
আমার আরেক জীবনের স্বপ্ন হয়েই কেবল রয়ে যায়!
মৃন্ময়,
তুমি বুকের উপর বসে আছো ভালোবাসার তলোয়ার হাতে।